যেদিন মিথ্যা ধর্ষণের অভিযোগকারিনীদের ধর্ষকের সমতুল্য শাস্তির বিধান দেওয়া হবে, সেদিন জনগণ বুঝবে ভারতের বিচার নিরপেক্ষ।

dhorshok supreme court

ধর্ষকের সঙ্গে কোনও অবস্থাতেই মধ্যস্থতা করা যাবে না। বিয়ের প্রতিশ্রুতির নাম করে মিটমাটের চেষ্টাও করা যাবে না। মহিলাদের শরীর মন্দির। নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের।

বুধবার বিচারপতি দীপক মিশ্রর নেতৃত্বে শীর্ষ আদালতের ডিভিশন বেঞ্চ বলেছে, ধর্ষণের ঘটনায় ধর্ষকের বিয়ের প্রতিশ্রুতিতে সমঝোতা করা হলে, ধর্ষিতার অপমান করা হয়। আর ‘মহিলাদের শরীর হল তাঁদের কাছে মন্দির।

মহামান্য সর্বচ্চো আদালত, শ্রদ্ধা ও সম্মানের সাথে মানলাম আপনার রায়। নিজেদের স্বার্থ চরিতার্থ করার জন্য যেসব ছেলেদেরকে মেয়েরা মিথ্যে ধর্ষণ মামলায় ফাঁসায় তাদের প্রতি আপনার রায় কি ? নাকি পুরুষের মন কুকুর বা নর্দমার কীটের মতন যেমন ভাবে খুসি খেলা যাবে ?

একটি মেয়ে ৫-১০ ছেলের সাথে সব রকম সম্পর্ক রাখবে এবং পড়ে স্বার্থ খুন্ন হলেই ধর্ষণ মামলা রজু করবে। আবার কখনো এমন হয় যে কোন তথাকথিত আধুনিক নারী স্বেচ্ছায় সহবাস করার পর পুরুষকে জোর করে বাধ্য করে বিয়ে করতে, অন্যথায় রজু করে ধর্ষণের মামলা !

মুম্বাই ও দিল্লী পুলিশ ইতিমধ্যেই জানিয়েছে ৯০% এরও বেশী ধর্ষণ মামলা এই ধরনের। এই সব ঘটনায় সর্বচ্চো আদালতের মতামত কি ?

একজন ব্যক্তির বিরুদ্ধে ধর্ষণের মিথ্যা অভিযোগ করা একজন ধর্ষণকারীর তুলনায় সমাজের পক্ষে আরো অনেক বেশী ক্ষতিকর। মিথ্যা ধর্ষণের অভিযোগকারিনীরা একজন নির্দোষ পুরুষের সুনাম ধ্বংস করে এবং পরবর্তীকালে তাঁকে স্পন্দিত অপরাধ করতে বাধ্য করে। সস্তায় টাকা উপায়ের জন্য একটি হাতিয়ার হিসেবে ধর্ষণকে ব্যবহারকারিণী নারীদের অবশ্যই কঠোর শাস্তি পাওয়া উচত!

যেদিন মিথ্যা ধর্ষণের অভিযোগকারিনীদের ধর্ষকের সমতুল্য শাস্তির বিধান দেওয়া হবে, সেদিন জনগণ বুঝবে ভারতের বিচার নিরপেক্ষ।

আপনার মতামত কাম্য !

[ বিঃ দ্র : ফেসবুকের নিয়ম অনুসারে
সামাজিক অবক্ষয় দমনে বাঙালি​ পেইজ এর
পোস্ট এ নিয়মিত লাইক, কমেন্ট
না করলে ধীরে ধীরে পোস্ট আর
দেখতে পাবেন
না।। তাই পোস্ট ভাল
লাগলে লাইক দিয়ে পেজে একটিভ থাকুন ]

Leave a Comment

*